১৮ ঘন্টা পর কুয়াকাটা সৈকতে থেকে সোহাগের ভাসমান লাশ উদ্ধার

আরিফ সুমন, কলাপাড়া (পটুয়াখালী): অবশেষে ১৮ ঘন্টা পর উদ্ধার হল গ্রীন হাউজ কনস্ট্রাকশন ও কনসালটেশন’র সিভিল ইঞ্জিনিয়ার এ.আর সোহাগ রহমান’র (৩০) লাশ।

বৃহস্পতিবার সকাল ৬ টার দিকে কুয়াকাটার পশ্চিম খাজুরা মাঝি বাড়ী এলাকার সাগরে জেলেরা লাশ ভাসতে দেখে। মহিপুর থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে।

বুধবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সমুদ্রে সাঁতার কাটতে গিয়ে সে নিখোঁজ হয়। মৃত ইঞ্জিনিয়ার সোহাগ রহমান সাভারের আশুলিয়া এলাকার জামগড়া উত্তরপাড়া খান বজলুর রহমান’র ছেলে বলে জানা গেছে।

কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশের ওসি মনিরুজ্জামান জানান, ইঞ্জিনিয়ার সোহাগের মরদেহ মহিপুর থানা পুলিশকে সোপর্দ করা হয়েছে। থানা থেকে তার লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে তিনি সাংবাদিবদের জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ইঞ্জিনিয়ার এ.আর সোহাগ রহমান ২৪ জুলাই মঙ্গলবার কুয়াকাটায় আসে। বুধবার সাড়ে ১২টার দিকে তার ভাইগ্না সোহাগ ও মহসিনের সাথে সৈকতে সাঁতার কাটতে নামে। এ সময় তারা সাগরে ঢেউয়ের ঘূর্নিপাকে পরে সাগরে নিখোঁজ হয়। দু’জনকে স্থানীয়ার আহত অবস্থায় উদ্ধার করলেও টুরিস্ট পুলিশ, নৌ-পুলিশ, ফায়র সার্ভিসের ডুবুড়িদল অনেক খোজাখুজি করেও ইঞ্জিনিয়ার এ.আর সোহাগ রহমানের সন্ধান মেলেনি।

This website uses cookies.