রাজাপুরে প্রবাসীর বাড়িতে হামলা-ভাংচুর ও লুটপাট : আহত-৪

মোঃ আঃ রহিম রেজা, (ঝালকাঠি): ঝালকাঠির রাজাপুরে বাবুল হোসেন হাওলাদার নামে এক ইভটিজারকে জুতাপোটা করার জেরে বাহরাইন প্রবাসী বেলায়েত হোসেনের বসতঘরে হামলা ভাঙচুর ও লুটপাট চালিয়ে মা ও তার দুই মেয়েকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার রাতে বড়ইয়া গ্রামের কাচারিবাড়ি বাজার এলাকায় ঘটে। বাবুল হাওলাদার বড়ইয়া ডিগ্রি কলেজের অফিস সহকারি। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের ৪ জন আহত হয়েছে।

আহতরা রাজাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসা নিচ্ছেন। রাতেই উভয় পক্ষ রাজাপুর থানায় পাল্টাপাল্টি লিখিত অভিযোগ করেছেন। আহতরা হল-প্রবাসী বেলায়েতের স্ত্রী আলমতাজ বেগম (৫০) তার মেয়ে সুখী আক্তার (২০) ও সাথী আক্তার (২৫) এবং ইভটিজার বাবুল হোসেন হাওলাদার।

প্রত্যক্ষদর্শী ও আহত সাথী আক্তার অভিযোগ করে জানান, সন্ধ্যার পর স্থানীয় কবির মেম্বরের অফিসে যাওয়ার উদ্দেশ্যে কাচারিবাড়ি বাজারে গেলে বাবুল হাওলাদার তাদের দুই বোন সাথী ও সুখিকে উদ্দেশ্যে করে অশালিন মন্তব্য করে ইভটিজিং করেন। তখন তারা প্রতিবাদ করলে তাদের চুল ধরে মাঠিতে ফেলে লাথি মারে এবং বেদরক মারধর ও নির্যাতন শুরু করে বাবুল।

এসময় তারা নিরুপায় হয়ে তাকে জুতাপেটা করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। পরে বাবলু ও লোকমান হাওলাদারের নেতৃত্বে ১০/১৫ জনের মিলে ওই এলাকার ভূতমারা খালের গোড়ায় অবস্থিত প্রবাসী বেলায়েতের বাড়িতে বৈদ্যুতিক লাইট বন্ধ করে ঘরে হামলা ভাঙচুর করে তান্ডব চালায়।

এতে আলমতাজ বেগম, সুখী আক্তার ও সাথী আক্তার আহত হয়। এ সময় হামলাকারীরা সোনার গহনা ও ঘরের মালামাল লুটে নিয়ে তাদের জিম্মি ও বন্ধী করে রাখে। পরে খবর পেয়ে রাজাপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের ৩ নারীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন এবং ঘটনাস্থল থেকে একটি রামদাও উদ্ধার করে।

বড়ইয়া ডিগ্রি কলেজের অফিস সহকারি অভিযুক্ত বাবুল হাওলাদার অভিযোগ অস্বীকার করে দাবি করেন, তারা অতর্কিতভাবে তার ওপর হামলা চালিয়ে তার মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে। এ ঘটনায় থানায় তিনি অভিযোগ দিয়েছে। রাজাপুর থানার ওসি শামসুল আরেফিন শনিবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা সত্য। উভয় পক্ষের অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *