থিয়াগোর কল্যাণে বায়ার্নের সেভিয়া জয়

প্রথম সকাল ডটকম ডেস্ক: শেষ চারটি চ্যাম্পিয়নস লিগেই স্প্যানিশ দলগুলোর বিপক্ষে হেরে চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বিদায় নিয়েছিল বায়ার্ন। অন্যদিকে ঘরের মাঠে কোনো জার্মান দলের বিপক্ষে হারের মুখ দেখেনি সেভিয়া।

এমন দুঃসহ স্মৃতিকে সঙ্গী করে সেভিয়ার বিপক্ষে খেলতে নামে হেইকেন্সের দল। শুরুতে পিছিয়ে পড়লেও ঠিকই থিয়াগোর কল্যাণে ২-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বায়ার্ন।

বার্সার বিপক্ষে শেষ ম্যাচে ৩ মিনিটে ২ গোল খাওয়ার বাজে স্মৃতিকে পেছনে ফেলে এদিন বায়ার্নের বিপক্ষে মাঠে নামে সেভিয়া। ১০ মিনিটে মুলারের ডিবক্সের ভেতর থেকে নেয়া শট গোলবারের উপর দিয়ে চলে যায়।

১৫ মিনিটে সেভিয়ার কোরেয়া ডিবক্সে পড়ে গেলে সেভিয়ার ফুটবলারদের পেনাল্টি আবেদন নাকচ করে দেন রেফারি। ২০ মিনিটে সেভিয়ার হয়ে সহজ সুযোগটি মিস করেন পাবলো সারাবিয়া। ডি বক্সের ভেতর থেকে সারাবিয়ার দুর্দান্ত শট ব্লক করেন বায়ার্ন ডিফেন্ডার ম্যাট হামেলস।

৩২ মিনিটে সেই সারাবিয়াই সেভিয়াকে অপ্রত্যাশিত লিড এনে দেন। ডিবক্সের বাইরে থেকে এস্কুদারোর ক্রস থেকে বা পায়ের শটে গোল করে দলকে ১-০ গোলে এগিয়ে দেন সারাবিয়া। ৩৬ মিনিটে ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়েন আর্তুরু ভিদাল। তার পরিবর্তে মাঠে নামেন হামেশ রড্রিগেজ। তার উপস্থিতিতে যেন প্রাণ ফিরে পায় বায়ার্ন দল।

৩৭ মিনিটে মিডফিল্ড থেকে বা পাশে রিবেরির কাছে বল পাঠান হামেস। রিবেরির ক্রস সেভিয়ার ফুটবলার নাভাসের পায়ে লেগে জালে জড়ালে সমতায় ফিরে আসে বায়ার্ন। ১-১ গোলের সময়তায় থেকে বিরতিতে যায় দুদল। দ্বিতীয়ার্ধেও আধিপত্য দেখিয়ে খেলতে থাকে বায়ার্ন। ৬৮ মিনিটে কাঙ্ক্ষিত জয়সূচক গোলটি আসে থিয়াগোর পা থেকে।

রিবেরির বাড়ানো বলে থিয়াগোর শট সেভিয়ার ফুটবলারের পায়ে লেগে জালে জড়ালে ম্যাচে প্রথমবারের মতো এগিয়ে যায় বায়ার্ন। শেষের দিকে কয়েকটি আক্রমণ করলেও গোলের ঠিকানা পায়নি সেভিয়া। ফলে প্রথম কোনো জার্মান দলের বিপক্ষে ঘরের মাঠে হারবরণ করে নিতে হলো সেভিয়াকে। অন্যদিকে ২-১ গোলের জয়ে সেমির পথ অনেকটাই সোজা হয়ে গেল বায়ার্নের জন্য।

This website uses cookies.