রাবিতে শিক্ষক নিয়োগে আবেদন যোগ্যতা শিথিল

সাঈদ সজল (রাবি প্রতিনিধি): রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষক নিয়োগে নতুন নীতিমালা প্রণয়ন করতে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। নীতিমালা অনুসারে কমিয়ে আনা হচ্ছে মোট সিজিপিও।

এর আগে ২০১৫ সালে ৪৬২তম সিন্ডিকেট সভায় শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালায় পরিবর্তন আনে তৎকালীন প্রশাসন।

শনিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুস সোবহানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ৪৭৫তম সিন্ডিকেট সভায় নীতিমালা পরিবর্তনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানান সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. কে বি এম মাহবুবুর রহমান।

মাহবুবুর রহমান জানান, তিন ক্যাটাগরিতে ভাগ করে শিক্ষক নিয়োগের নীতিমালা পরিবর্তন আনা হচ্ছে। কলা, চারুকলা ও ইন্সটিটিউট অব বাংলাদেশ স্টাডিজ ক্যাটাগরিতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে সিজিপিএ-৩.০০। সামাজিক বিজ্ঞান, আইন, ব্যবসায় শিক্ষা, ব্যবসায় প্রশাসন ইন্সটিটিউট পর্যায়ে সিজিপিএ-৩.২৫ এবং বিজ্ঞানবিষয়ক অনুষদগুলোতে সর্বনিম্ন সিজিপিএ ৩.৫০ থাকতে হবে নিয়োগ প্রত্যাশীদের।

২০১৫ সালে পরিবর্তীত নীতিমালায় প্রতিটি বিভাগ বা ইন্সটিটিউটে শিক্ষক নিয়োগে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে সিজিপিএ-৩.৫০ আবশ্যক করা হয়। এর আগের নীতিমালায় যেকোন দুইটিতে প্রথম বিভাগ থাকলে আবেদন করা যেতো। এদিকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষকদের চলমান দ্বন্দের কারণে সভাপতির পদ থেকে সরে যেতে হচ্ছে বিভাগীয় সভাপতি ড. নাসিমা জামানকে।

পদত্যাগের বিষয়ে অধ্যাপক নাসিমাকে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহান অনুরোধ জানাবেন বলে সিদ্ধান্ত হয় একই সিন্ডিকেটে’- বলছিলেন অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান। এছাড়া গত ৩১ জুলাই বিভাগের অধ্যাপক রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে ‘যৌন হয়রানির’সহ ১১ শিক্ষকের বিরুদ্ধে ‘আপত্তিকর মন্তব্যে’ করার অভিযোগ তুলে প্রশাসন বরাবর আবেদন করেন শিক্ষক রুখসানা পারভীন।

বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বিজ্ঞান অনুষদের অধিকর্তা অধ্যাপক ড. আখতার ফারুককে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেন উপাচার্য। কমিটির প্রতিবেদনে রুখসানা পারভীনের করা অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় শিক্ষক রুহুল আমিনকে নির্দোষ ঘোষণা করা হয়। সেই সঙ্গে রুখসানা পারভীনকে ১৫ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর সিদ্ধান্ত নেয় সিন্ডিকেট।

 

This website uses cookies.