কনডম ফুটো করায় প্রেমিকের জেল!

প্রথম সকাল ডটকম ডেস্ক: নারীর সব ইচ্ছাকে শেষ সীমা পর্যন্ত সজ্ঞানে সম্মান না জানানোয় কানাডার এক প্রেমিক বর্তমানে জেলে যাওয়ার অপেক্ষায়৷ কারণ তার প্রেমিকার অভিযোগ, প্রেমিক তাকে কৌশলে গর্ভবতী করেছেন! ২০০৬ সালের ঘটনা৷

মেয়েবন্ধুর সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্কটা শীতল হয়ে আসছে দেখে দুশ্চিন্তায় পড়ে যান জ্যারেট হাচিনসন৷ প্রেমিকা তাকে ছেড়ে যেতে পারে এই আশঙ্কায় একটি কৌশলের আশ্রয় নেন ৪৩ বছর বয়সি এই কানাডিয়ান৷

প্রেমিকার সঙ্গেই থাকতেন তিনি৷ যৌন সংসর্গও হতো নিয়মিত৷ প্রেমিকার শর্ত মেনে তখন কনডম ব্যবহার করতে হতো তাকে৷ ঘটনার রাতেও কনডম ব্যবহার করেছিলেন৷ কিন্তু সম্ভোগ শুরুর আগে একটি পিনের খোঁচায় কনডমটি ফুটো করে দিয়েছিলেন তিনি৷

ফলে যা হওয়ার তা-ই হলো৷ প্রেমিকা অন্তঃসত্ত্বা হলেন৷ তারপর হাচিনসন স্বীকার করলেন, সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতেই এই কৌশল অবলম্বন করা৷ নারীর সঙ্গে ছলাকলা অনেক পুরুষই করে থাকেন৷ সরল বিশ্বাসের খেসারত নানাভাবে দিতে হয় অনেক নারীকে৷

ঘরে, রাস্তায় নারী নির্যাতন, নারীর যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার ঘটনা কমবেশি সব দেশেই ঘটে থাকে৷ কিন্তু এ সবের বিচার হয় হাতে গোনা কয়েকটি দেশে৷ কানাডা সেসব দেশের মধ্যে অন্যতম৷ তাই জ্যারেট হাচিনসন কায়দা করে তাকে অন্তঃসত্ত্বা করার পর ব্যাপারটি মেনে নেননি নাম প্রকাশ না করা প্রেমিকা৷

গর্ভপাত ঘটাতে গিয়ে জরায়ুতে সংক্রমণ হয়, রক্তস্রাব শুরু হয় অতিমাত্রায়, সাতদিন কষ্টভোগের পর স্থির করেন, কূটকৌশলের আশ্রয় নেয়ার উপযুক্ত শাস্তি দেবেন প্রেমিককে৷ সে উদ্দেশ্যেই ২০০৬ সালে প্রেমিকের বিরুদ্ধে তথ্য গোপন করে যৌন হয়রানির অভিযোগে মামলা করেছিলেন কথিত প্রেমিকা৷

২০০৯ সালে কানাডার নোভি স্কোটিয়া সুপ্রিম কোর্ট অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি জানিয়ে হাচিনসনকে নির্দোষ ঘোষণা করে৷ কিন্তু আপিল আদালত সেই রায় খারিজ করে নতুন করে মামলার শুনানির নির্দেশ দেয়৷ কানাডার সুপ্রিম কোর্টে অবশেষে মামলাটির নিষ্পত্তি হয়েছে৷ আদালত জানিয়েছে, কনডম ফুটো করার তথ্যটি গোপন করে প্রেমিকাকে অন্তঃসত্ত্বা করে শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন জ্যারেট হাচিনসন৷ সে অপরাধে ১৮ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে তাকে৷ হাচিনসন অবশ্য এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবেন বলে জানা গেছে৷

 

This website uses cookies.