পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা হিন্দুরা কী বলছেন?

প্রথম সকাল ডটকম ডেস্ক: কক্সবাজারের উখিয়ায় কুতুপালং শরণার্থী শিবিরের কাছে একটি মন্দিরের পাশে খোলা জায়গায় এসে আশ্রয় নিয়েছেন প্রায় পাঁচশ’ রোহিঙ্গা হিন্দু নারী-পুরুষ-শিশু। মিয়ানমারের রাখাইনে এখন যে ব্যাপক সহিংসতা চলছে, এরাও তার শিকার হয়ে সেখান থেকে পালিয়ে এসেছেন।

রোহিঙ্গা মুসলিমরা হাজারে হাজারে রাখাইন থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিলেও এই প্রথম রোহিঙ্গা হিন্দুদের সেখান থেকে পালিয়ে আসতে দেখা গেল। কুতুপালং এর মন্দিরে আশ্রয় নেয়া কয়েকজন রোহিঙ্গা হিন্দু নারী-পুরুষ বিবিসির কাছে বর্ণনা করেছেন কেন তারা সেখান থেকে পালিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছেন।

যে হিন্দু গ্রামটি সবচেয়ে বেশি হামলার শিকার হয়েছে সেটির নাম ফকিরাবাজার। দেনাবালার বাড়ি ছিল এই ফকিরাবাজার গ্রামে। তিনি বলেন, অনেক দুঃখে সেখান থেকে তারা পালিয়ে এসেছেন। ‘আমাদের গুলি করেছে। ঘর-বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে। ভাত-পানি খেতে দেয়নি। আমরা হিন্দু মানুষ। আমাদের মেরেছে-কেটেছে। আমাদের মন্দির পুড়িয়ে দিয়েছে।

সেই জন্য আমরা চলে এসেছি। এক গ্রাম থেকেই আমরা চারশ’ জনের মতো এসেছি। যারা মারতে এসেছিল, ওরা কালো পোশাক পরে এসেছিল। ওদের চিনি না। শুধু চোখ দেখা যাচ্ছিল। বকুলবালা নামে আরেক শরণার্থী জানান, ফকিরাবাজার থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে চিকনছড়িতে ছিল তার বাড়ি। মেয়েকে বিয়ে দিয়েছিলেন ফকিরাবাজারে।

তার স্বামী মেয়েকে দেখার জন্য ফকিরাবাজার যান। সেখানে তার স্বামী, মেয়ে এবং নাতি সবাই নিহত হয়েছে। ‘সেখানে সব মানুষকে কেটে ফেলেছে। সেখানে আমার মেয়েকে কেটে ফেলেছে। আমার মেয়েকে দেখতে গিয়েছিল আমার স্বামী। আমার স্বামীকেও কেটে ফেলেছে। আমার নাতি ছিল। তাকেও কেটে ফেলেছে।

হামলাকারীদের চিনতে পেরেছিলেন কি না, এই প্রশ্নের উত্তরে বকুলবালা বলেন, কালো পোশাকে আবৃত থাকায় তাদের চেনা যাচ্ছিল না। ‘কালো কালো পোশাক পরে ওরা এসেছিল। চোখ ছাড়া আর কিছু দেখা যায় না। চিনতে পারিনি। ওরা কাটছিল, মারছিল, গুলি করছিল। সবাইকে মেরে ফেলেছে। ওরা কখনো বার্মিজ ভাষায় কথা বলছিল, কখনো বাংলা বলছিল।

ওদের হাতে অনেক ধারালো অস্ত্র ছিল। চিকনছড়িতে যখন ওরা এসে পৌঁছায়, তার আগেই আমরা পালিয়ে যাই। শিবকুমার নামে আরেকজন বলেন, তার মা বাবা খালা সবাইকে হামলাকারীরা মেরে ফেলেছে। ‘হিন্দু মুসলমান সবাইকে মেরেছে। গুলি করেছে। ওরা কালো পোশাক পরা ছিল। আমি চিনি না। চারিদিক থেকে ঘেরাও করে আমাদের মারছে। হিন্দু মুসলমান সবাই এক সঙ্গে পালিয়ে এসেছি।’ বিবিসি বাংলা।

This website uses cookies.