বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৭ কোটি ছাড়াল

প্রথম সকাল ডটকম: বাংলাদেশে সক্রিয় ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৭ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। গত এপ্রিল মাসের হিসেবে এই মাইলফলক পার করেছে বলে জানিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।

সংস্থাটির হিসেবে ৩১ মে পর্যন্ত দেশে মোট ইন্টারনেট গ্রাহক ৭ কোটি ২০ লাখ এবং মোট মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৩ কোটি ৫০ লাখ। এই ৭ কোটি গ্রাহকদের মধ্যে ৯৩.৬৯ শতাংশ গ্রাহক মোবাইলের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করে।

এছাড়া ৬.১৭ শতাংশ ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার (আইএসপি) এবং ০.১৪ শতাংশ গ্রাহক ওয়াইম্যাক্স অপারেটরদের গ্রাহক।

মোবাইল ফোন অপারেটরদের মধ্যে গ্রামীণফোনের মোট ইন্টারনেট গ্রাহক ২ কোটি ৯৬ লাখ, রবি ও এয়ারটেলের ২ কোটি ১৮ লাখ, বাংলালিংকের ১ কোটি ৫৫ লাখ এবং টেলিটকের ৪ লাখ ৪৮ হাজার। দেশে বিদ্যমান ওয়াইম্যাক্স অপারেটর বাংলালায়নের মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৪৫ হাজার ৫৫১ জন এবং ওপর ওয়াইম্যাক্স অপারেটর কিউবির মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩৬ হাজার ৫৫৯ জন।

এছাড়া সরকারি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানী লিমিটেডের (বিটিসিএল) মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২১ হাজার ২১ জন। দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধিকে ইতিবাচক হিসেবে দেখেছে দেশের মোবাইল ফোন অপারেটররা। তারা বলছে ইন্টারনেট এখন মানুষের মৌলিক চাহিদা হয়ে উঠেছে এবং ব্যান্ডউইথের মূল্য কমানোর পর থেকে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর গ্রোথও ভাল।

সম্প্রতি দেশের শীর্ষ তিন মোবাইল ফোন অপারেটরের ত্রৈমাসিক আর্থিক প্রতিবেদনেও দেখা গেছে দেশে ডাটা ইউজেসের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে অপারেটররা বলছে, ডাটার ব্যবহার বৃদ্ধি পেলেও ইউনিক ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা চোখে পড়ার মত বৃদ্ধি পাচ্ছে না। দেশে তাদের মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর মধ্যে মাত্র ২০ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করছে।

এদিকে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ বলছেন, বিশ্বের খুব অল্প দেশই আছে এই বিপুল পরিমাণ ইন্টারনেট ব্যবহারকারী রয়েছে। দেশে এখন ইন্টারনেট পেনিট্রেশনের পরিমাণ ৪৪.৪৩ শতাংশ। প্রসঙ্গত, এর আগে দেশে ৬ কোটি ইন্টারনেট গ্রাহকের মাইলস্টোন পার করে গত বছরের আগস্টে।

৫ কোটি ইন্টারনেট গ্রাহক হয়েছিল ২০১৫ সালের আগস্টে এবং ৪ কোটি ইন্টারনেট গ্রাহক হয়েছিল ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে। উল্লেখ্য বিটিআরসি আগে প্রতিমাসে মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট গ্রাহকের পরিসংখ্যা তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করলেও সর্বশেষ গত ফেব্রুয়ারির পর আর কোন নতুন আপডেট প্রকাশ করেনি।

This website uses cookies.