শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে ৭ উপায়

প্রথম সকাল ডটকম ডেস্ক: শিশুদের খুব সাধারণ একটি সমস্যা হলো  কোষ্ঠকাঠিন্য। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাবার জন্য শিশুদের ওষুধ খাওয়ানোও সম্ভব হয় না। তাদের সহ্য ক্ষমতা বড়দের থেকে কম হওয়ায় ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া তাদের ওপর দ্রুত পড়ে।

মূলত হঠাৎ করে শক্ত খাবার খাওয়া শুরু করার কারণে তাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। ওষুধ ছাড়া ঘরোয়া কিছু উপায়ে শিশুর এই সমস্যা দূর করা সম্ভব। এই ঘরোয়া উপায়গুলো নিয়ে আজকের এই আয়োজন।

১। পানি:- কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে শিশুকে প্রচুর পরিমাণ পানি পানের অভ্যাস করানো উচিত।ডিহাইড্রেশন কোষ্ঠকাঠিন্যের অন্যতম কারণ। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাটি ঘন ঘন দেখা দিলে শিশুর পানি পানের পরিমাণ বাড়িয়ে দিন। কমপক্ষে দিনে ১.৫ লিটার পানি পানের অভ্যাস করে তুলুন। এছাড়া কুসুম গরম পানি এবং লেবুর রস মিশিয়ে শিশুকে দিতে পারেন। এটি পেট নরম করে শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে দেয়।

২। কলা:- ফাইবার এবং পেকটিন সমৃদ্ধ ফল কলা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে। দিনে দুটি কলা খাওয়ানোর অভ্যাস করুন শিশুদের। কলার পেকটিন উপাদানটি পরিপাক ক্রিয়াকে সহজ করে খাবার হজম করতে সাহায্য করে। ৩। আলুবোখরার জুস:- শিশুদের কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে আলুবোখরার জুস বেশ কার্যকর। আলু বোখরার রসের সাথে সমপরিমান পানি মিশিয়ে সেটি শিশুকে পান করাতে পারেন। আলুবোখরা শিশুর পেট নরম করে কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা দূর করে দেয়।

৪। আপেল:- প্রতিদিন একটি আপেল খাদ্য তালিকায় রাখুন। আপেল উচ্চ পেকটিন সমৃদ্ধ খাবার, যা পেট নরম করে। একদিনে দুই থেকে চার আউন্স আপেলের জুস অথবা একটি আপেল  শিশুকে দিতে পারেন। তবে বাজারের আর্টিফিসিয়াল আপেল জুসের পরিবর্তে ঘরের আপেলের জুস বেশি উপকারী। ৫। ঝোলা গুড়:- উচ্চ চিনি সমৃদ্ধ ঝোলা গুড় বা নলেন গুড় কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা দূর করে হজম শক্তি বৃদ্ধি করে। শিশুকে এক দুই চামচ ঝোলা গুড় খাওয়াতে পারেন।

৬। অলিভ অয়েল:- এক চা চামচ অলিভ অয়েল এবং এক চা চামচ লেবুর রস একসাথে মিশিয়ে নিন। এটি সকালে খালি পেটে শিশুকে খেতে দিন। কয়েকদিন নিয়মিত এটি শিশুকে খাওয়ান। দেখবেন কিছুদিনের মধ্যে কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা দূর হয়ে গেছে। ৭। অ্যালোভেরা:- অ্যালোভেরা শুধু রুপচর্চার কাজে ব্যবহৃত হয় না, এটির স্বাস্থ্য উপকারিতাও অনেক। দুই চামচ অ্যালোভেরা জেল এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে মিশিয়ে নিন। এটি নিয়মিত শিশুকে পান করান। সূত্র: দ্যা হেলথ সাইট

This website uses cookies.