শৈলকূপার মদনডাঙ্গা বাজারে চলছে অবাধে রমরমা জুয়াখেলা : প্রসাশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা

জাহিদুর রহমান তারিক, (ঝিনাইদহ): ঝিনাইদহের শৈলকূপা উপজেলার ত্রিবেণী ইউনিয়নে কুষ্টিয়া ঝিনাইদহ মহাসড়কের পাশে মদনডাঙ্গা বাজার। এই বাজার থেকে মাত্র ২ কিমি দূরত্বে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন শেখপাড়া বাজার। সপ্তাহে শুক্র ও মঙ্গলবার কাঁচামালের হাট এবং বৃহস্পতিবারে বসে গরুর হাট।

ঝিনাইদহ, কুষ্টিয়া সহ দেশের দূর দূরান্ত থেকে বিভিন্ন অঞ্চলের ব্যবসাহীরা আসে এই হাটে বেচা কেনা করার জন্য। এই সুযোগে বাজারের পশ্চিম পাশে ত্রিবেণী ইউনিয়ন পরিষদের পিছনে পুকুর পাড়ের কলা বাগানের মধ্যে চলে জম জমাট জুয়ার আসর।

জানা গেছে, এই জুয়াখেলা কে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে ইয়াবা ব্যবসা। এই জুয়ার আসর ও মাদক ব্যবসা পরিচালনাকারীরা স্থানীয় প্রভাবশালী হওয়ার এখান কার সাধারণ মানুষেরা এদের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায় না। নাম না প্রকাশ করার শর্তে একজন বলেন যে সাধারণ হাটের দিন সকাল ৯ টা থেকে আর গরুর হাটের দিন বিকাল ৩ টা থেকে মথুরাপুর গ্রামের একটি প্রভাবশালী পরিবারে ২ ভাইয়ে নেতৃত্বে চলে এই জুয়ার আসর।

তাহাছাড়া “স” মিলের পাশে মাছুদের চায়ের দোকানে অবাধে চলে হানেফ, দবির ও কাঞ্চনের নেতৃত্বে সেখানে প্রতিনিয়তই রমরমা জুয়ার আসর বসে। এ নিয়ে যেকোন সময় রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে এলাকাবাসী আশংকা করছে। তাই অতিস্বত্বর এই জুয়ার আসর বন্ধে প্রসাশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এলাকাবাসী।

স্থানীয় কয়েক জন সাংবাদিককে বলেন, মাঝে মাঝে পুলিশ আসে যারা জুয়ার কোর্ট পরিচালনা করে তাদের সাথে দেখা করে আবার ফিরে যায়। পুলিশের সাথে এদের বিশেষ সখটা থাকার কারনে কেউ কিছু বলতে সাহস পায় না। এই ইউনিয়নের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেন, ২ নং মির্জাপুর ইউনিয়নের মথুরাপুর গ্রামের মজিবর মোল্লার ছেলে রেন্টু ও সুমন, আব্দুল খালেকের ছেলে রিংকুর নেতৃত্বে এই বাজারে অবাধে চলছে জুয়াখেলা।

যা এখানকার সামাজিক পরিবেশ কে ক্ষতিগ্রস্ত করছে যুব সমাজকে নিয়ে যাচ্ছে ধ্বংসের দিকে। এই বাজারের পাশেই স্বনাম ধন্য বসন্তপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় যাহার প্রভাব এই কমলমতি ছাত্রছাত্রীদের মাঝে বিরূপ অবস্থার সৃষ্টি করছে। আমি এই জুয়া এবং মাদকের অবাধ বাণিজ্য বন্ধের জন্য প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি। ইতিমধ্যে গত শনিবার সন্ধ্যায় জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে শেখপাড়া বাজারে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ১২ জন আহত হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, শৈলকুপার শেখপাড়া বাজারে বকুল জোয়ার্দ্দার ও আনোয়ার জোয়ার্দ্দারের লোকজনের মধ্যে জুয়া খেলা নিয়ে বাক-বিতন্ডা হয়। এরই এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে আনোয়ার জোয়ার্দ্দার, ছানোয়ার জোয়ার্দ্দার, উজ্জল জোয়ার্দ্দার, হাবিবুর, আরিফ, আনিচ, বসির, বিপুল, শাহিন, ইসমাইল, নজরুল ও জীবন সহ উভয় পক্ষের ১২ জন আহত হয়।

আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিক ও কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা দেওয়া হয়েছে। এদিকে এলাকাবাসীর অভিযোগ, শেখপাড়া বাজারে দীর্ঘদিন যাবৎ জুয়ার আসর বসে কিন্ত প্রশাসনের কোন মাথা ব্যাথা নেই যে কারনে এলাকায় বহিরাগত লোকজনের আবিভার্ব ঘটে। প্রকাশ্যে জুয়ার আসর চলায় এলাকার যুবসমাজ ধ্বংসের দিকে ধাবিত হচ্ছে।

এলাকাবাসির অভিযোগ এই গ্রুপটি প্রশাসনকে ম্যানেজ করে শেখপাড়া বাজারে জুয়া ও মাদকের রমরমা বানিজ্য চালিয়ে আসলেও তাদের বিরুদ্ধে কেও টু-শব্দ করে না। পুলিশ প্রশাসন তাদের কব্জায় আছে বলে বিভিন্ন সময় আনোয়ারসহ তার সাগরেদরা দম্ভোক্তি প্রকাশ করে। শৈলকূপা থানার অফিসার ইনচার্জ তরিকুল ইসলাম বলেন, মদনডাঙ্গা বাজারের জুয়া খেলার খবর আমার জানা নেই।আর যারা জুয়া খেলা পরিচালনা করে তাদের সাথে পুলিশের সম্পর্ক থাকতে পারে না। এ সকল কথা আদৌ সঠিক হয়। আমার নির্দেশ আছে জুয়া খেলার খবর পেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

This website uses cookies.