একটানা বসে থাকার মানে মৃত্যুকে কাছে ডাকা

0 (2)

প্রথম সকাল ডটকম ডেস্ক: অতিরিক্ত দৌড়-ঝাপ, ঠিকমতো না খাওয়া, সবকাজে অনিয়ম করা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। আর এসব কথা সবাই মোটামুটি ভালো করেই জানে। অথচ ঠিকমতো খাওয়া দাওয়া করে চুপটি করে বসে কাজ করাও যে শরীরের জন্য চরম বিপজ্জনক! সবচেয়ে লক্ষ্মীটি হয়ে চুপচাপ বসে থাকাও ডেকে আনে মৃত্যু পরোয়ানা।

লন্ডনের কিংস কলেজের একদল গবেষক আবিষ্কার করেছেন, একটানা বসে থেকে অফিস বা বাসার সব কাজ করে যাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এতে আপনার মেরুদণ্ডের সমস্যা, দেহের শিরা উপশিরায় রক্ত চলাচলে বিঘ্ন ঘটা, স্থুলতা বেড়ে যাওয়া এবং শারীরিক নানা সমস্যা হতে পারে।

আপনি অচিরেই শারীরিকভাবে অক্ষম হয়ে যেতে পারেন। আজকাল অধিকাংশ কর্পোরেট অফিসের কর্মীদের এ ধরনের সমস্যা বেশি দেখা দিচ্ছে। তারা মালিক পক্ষের সন্তুষ্টি ধরে রাখতে নিজের সুস্থতার কথা ভুলে যান। একাধারে অনেকক্ষণ কাজ করে চলেন। অথচ হঠাৎ এধরনের অসুস্থ হলে প্রয়োজন পড়ছে ব্যয়বহুল চিকিৎসা। কোনো ক্ষেত্রে এর পূর্ণনিরাময় সম্ভব হচ্ছে না। অথচ সামান্য চেষ্টাতে আপনার সুস্থতা নিজেই নিশ্চিত করতে পারেন।

নড়াচড়া করুন:- নিজের চেয়ারে দীর্ঘক্ষণ একভাবে বসে থাকার চেয়ে একটু দুরন্ত হতে পারেন। কাজে বুদ হয়ে থাকার অভ্যাস হঠাৎ করে কোমরে ব্যথার সমস্যা, এমনকি হাঁটাচলা পর্যন্ত বন্ধ করে দিতে পারে। লন্ডনের লিডস বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণায় পাওয়া গেছে একটানা ৭ ঘণ্টা বসে কাজ করা নারীদের মৃত্যুহার ৫ ঘণ্টা বসে কাজ করা নারীদের চেয়ে ৪৩ ভাগ বেশি। তাই চেয়ারে বসে কাজ করলেও একটু নড়াচড়ার অভ্যাস রাখুন।

কাজের ফাঁকে হাঁটা:- কাজের ফাঁকে অন্তত দশ মিনিট হাঁটলে আপনার সুস্থ থাকার সম্ভবনা এমনিই বেড়ে যাবে। প্রতি ঘণ্টায় অন্তত দুই থেকে তিন মিনিট হাঁটুন। কাজের ফাঁকে হাটলে শরীরে রক্ত সঞ্চালন বেড়ে যায়। কার্ডিও ভাসকুলার হেলথ আরও ভালো হয়।

বিশ্রাম:- নিজের সুস্থতার কথা ভেবে কাজের ফাঁকে সামান্য ব্রেক দিতে পারেন। ওয়াসরুম, কিচেন বা ক্যান্টিনে যেতে পারেন। পরিচিতদের কারো খোঁজ নিতে সময় ব্যয় পারেন। এই হাঁটাটিও হতে হবে কমপক্ষে মিনিট তিনেকের। আমেরিকার উটা হেলথ সায়েন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের মত অনুযায়ী প্রতি ঘণ্টায় দু-মিনিট হাঁটা ব্যায়ামের বিকল্প নয়, তবে এই হাঁটা মৃত্যুর হার কমায় ৩৩ ভাগ। তাই নিজের ক্ষতি করে কর্তৃপক্ষের নজরে বেশি কর্মঠ এবং কাজের অনুরাগী হতে যাওয়ারে দরকার নেই। বরং মাঝে মাঝে একটু হেঁটে নিজেকে সুস্থ রাখুন।

হাঁটার পরেই বসা নয়:- অফিসের সময় প্রায় হয়ে এলো। এই সময়ের মধ্যে অফিসে পৌঁছতে হবে। খুব দ্রুত হেঁটে আবার সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠে ধপাস করে বসে পড়লেন নিজের চেয়ারে। এই যে বসলেন সারাদিনে আপনার আর ওঠার নাম নেই। ঠিক এমনি করে খুব বেশি দিন আপনার সুস্থ থাকাটা বোধ হয় সম্ভব না। অথচ আপনি ভেবে সন্তুষ্ট যে, প্রতিদিন অফিসে আসা যাওয়ায় কমপক্ষে একঘণ্টা হাঁটা হচ্ছে।

এতেই বুঝি আপনি সুস্থ থাকবেন। কিন্তু না, দ্রুত হেঁটে হঠাৎ বসে পড়া এবং দীর্ঘক্ষণ বসে থাকা আপনার মৃত্যুর হার বাড়াতে পারে ১২ থেকে ১৪ শতাংশ। তাই দ্রুত হেঁটে দুর্বল হলেও কিছুটা সময় আস্তে হাঁটুন। নিজেকে একটু শীথিল করে তারপর চেয়ারে বসুন।

বসার চেয়ার:- বসার চেয়ারটি হতে হবে স্বাস্থ্য উপযোগী। চেয়ারের ঠিক যে অংশে আপনার কোমর থাকবে সেখানে ছোট্ট একটি বালিশ রেখে দিতে পারেন। বসে থাকা অবস্থায় কোমরের ওই অংশে যেন ফাঁকা না থাকে। তাহলেও অনেকটা সুস্থ থাকা সম্ভব।

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *