ঈদের ঝাল-মিষ্টি খাবার

প্রথম সকাল ডটকম ডেস্ক: ঈদ মানেই মজার মজার খাবার রান্না, চাই ভিন্ন স্বাদের তৃপ্তি। ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেয়ার জন্য খাবার হচ্ছে প্রধান বিষয়। তাই ঈদ উদযাপনের অন্য প্রস্তুতির পাশাপাশি গৃহিণীদের চলছে রান্নার প্রস্তুতি। অতিথি আপ্যায়নে ও নিজেদের জন্য চাই ভিন্ন স্বাদের খাবারের স্বাদ। ঈদের বিশেষ দিনটিতে বিশেষ ঝাল-মিষ্টি রান্না করুন।

তেহারি:- উপকরণ : পোলাওর চাল (কালিজিরা), মাংস (গরু বা খাসি) ছোট টুকরা করা, ছোট আলু, তেল, ঘি, পেঁয়াজ, আদা, রসুন, ছোট এলাচ, দারুচিনি, জয়ত্রি, জায়ফল, লবঙ্গ, শাহী জিরা, টক দই, দুধ, কাঁচামরিচ, সাদা গোলমরিচ, লবণ পরিমাণমত।

প্রণালী : পেঁয়াজ, আদা, রসুন, টক দই মাংসের সঙ্গে ভালো করে মেখে চুলায় বসাতে হবে। মাংসের পরিমাণ অনুযায়ী গরম মসলা গুঁড়া করে মাংসের ওপর দিতে হবে। ছোট আলু সেদ্ধ করে নিতে হবে। মাংস ৮০ শতাংশ রান্না হলে আগে থেকে সেদ্ধ করা আলু মাংসের ওপর ঢেলে দিতে হবে। আলাদা চুলায় নিয়মমত পোলাও রান্না করে নিতে হবে। আলাদা রান্না করা পোলাও চুলার ওপর রাখা মাংসের ওপর ঢেলে দিতে হবে। এক্ষেত্রে বলা যায়, পাঁচ কেজি চালের সঙ্গে আট কেজি মাংস দিলে ভালো হয়। এরপর ঘি আর ভাজা পেঁয়াজ রান্না করা তেহারির ওপর দিয়ে দিতে হবে।

ফিরনি:- উপকরণ : দুধ তিন কেজি, পোলাওর চাল দেড়শ’ গ্রাম, বাদাম কুচি দুই টেবিল চামচ, কিশমিশ ২ টেবিল চামচ, গোলাপজল তিন টেবিল চামচ, চিনি আধা কেজি, চেরি ফল কুচি দুই টেবিল চামচ, এলাচি+দারুচিনি ৪/৫টি।

প্রণালী : পোলাওর চাল ভিজিয়ে আধা ভাঙা করে রাখুন। এখন দুধে চালের গুঁড়া, এলাচি, দারুচিনি দিয়ে জ্বাল দিতে থাকুন। এক সময় চাল সিদ্ধ হয়ে দুধ ঘন হয়ে আসবে, তখন কাঠবাদাম ও চিনি দিয়ে আরও কিছুক্ষণ জ্বাল দিন। নামানোর কিছুক্ষণ আগে গোলাপজল ছিটিয়ে গরম গরম বড় বড় বাটিতে ঢেলে চেরি, কিশমিশ ও বাদাম দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন। তবে ফ্রিজে রেখে ঠাণ্ডা করে খেলে বেশি মজা লাগে।

মগজ ভুনা:- উপকরণ : গরুর মগজ ১টি, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, কাঁচামরিচ ৪/৫টি, তেল ২ টে. চামচ, সাদা গোলমরিচ আধা চা চামচ, লবণ পরিমাণমত, হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ, চিনি সামান্য, গুঁড়া মরিচ ১ চা-চামচ, দারুচিনি-এলাচ গুঁড়া আধা চা-চামচ, ওয়েস্টার সস ২ চা-চামচ।

প্রণালী : প্রথমে গরুর মগজ ভালো করে ধুয়ে গোলমরিচ গুঁড়া, হলুদ, মরিচ, ওয়েস্টার সস, দারুচিনি-এলাচ গুঁড়া মাখিয়ে ১ ঘণ্টা মেরিনেট করে রাখুন। চুলায় পাত্র দিয়ে তাতে তেল গরম দিন। এবার পেঁয়াজ কুচি, লবণ, ওয়েস্টার সস দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়ে তাতে মেরিনেট করা মগজ দিয়ে দিন। সামান্য পানি দিয়ে সিদ্ধ করুন। মাখা মাখা হয়ে এলে চিনি দিয়ে নামিয়ে নিন। সার্ভিং ডিশে ঢেলে পরিবেশন করুন।

দরবারি ভুনা মাংস:- উপকরণ : মাংস আধা কেজি, তেল ১ কাপ, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, কিশমিশ ৫০ গ্রাম, মাখন ৫০ গ্রাম, নারকেল কুড়ানো আধা কাপ, মরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ, দারুচিনি এলাচ ৪/৫টি, লবণ পরিমাণমত, টকদই ১ কাপ, কাঁচামরিচ ৪/৫টি।

প্রণালী : প্রথমে কড়াইতে মাখন গরম করুন। মাংস, পেঁয়াজ ও কিশমিশ দিয়ে পাঁচ মিনিট ধরে ভাজুন। আঁচ কমিয়ে ৩০ থেকে ৩৫ মিনিট ঢাকা দিয়ে রান্না করুন, যতক্ষণ না মাংস নরম হয়। এবার বাকি সব উপকরণ দিয়ে আরও তিন-চার মিনিট রান্না করুন। সবশেষে কাঁচামরিচ ও পাপড়িকা ছিটিয়ে দিন। সার্ভিং ডিশে ঢেলে গরম গরম পরিবেশন করুন।

খাসির কোরমা:- উপকরণ : খাসির মাংস ১ কেজি, টক দই ১ কাপ, পেঁয়াজ বাটা ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, জিরা বাটা ১ চা চামচ, আস্ত গরম মসলা, এলাচ-দারুচিনি ৭-৮ টুকরো, কাঁচামরিচ আস্ত ৭-৮টি, পেঁয়াজ কাটা ২ টেবিল চামচ, লবণ ও তেল পরিমাণমত।

প্রস্তুত প্রণালী : খাসির মাংস ভালো করে ধুয়ে মাঝারি টুকরো করে টক দই দিয়ে আধ ঘণ্টা মাখিয়ে রাখুন। কড়াই-হাঁড়িতে তেল দিয়ে গরম হলে কাটা পেঁয়াজ ও কাঁচা মরিচ বাটা সব মসলা দিয়ে দিন। মসলা কষানো হলে মাংস দিয়ে ভালো করে নেড়ে কষিয়ে ঢেকে দিন। কষানো হলে মাংস সিদ্ধের জন্য পানি দিন। মাংস সিদ্ধ হলে কাঁচামরিচ দিয়ে চুলো কমিয়ে দমে রাখুন। ৫-৭ মিনিট পর নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন। লেখক:- রোজিনা আক্তার

This website uses cookies.