ভালবাসা দিবসে কি দিবেন আর কি পড়বেন

5 (17)প্রথম সকাল ডটকম: বাংলাদেশে বসন্ত বরন বসন্ত ঋতুর ক্ষণগণনা শুরু হয় ১৩ ফেব্রুয়ারি থেকে, যার একদিন পর অর্থাৎ ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইনস ডে। একদিন আগে পরে এ দুইটি দিন উদযাপিত হওয়ায় আমাদের দেশের যুবক-যুবতীদের উৎসব সংস্কৃতিতে মহোৎসবের রূপ পেয়েছে ভ্যালেন্টাইনস ডে। আর আমাদের দেশের রাজধানী ঢাকার যুবক-যুবতীদের কাছে এ দিনটি আরো উৎসবের আমেজ পায় চলমান অমর একুশের বইমেলার কারণে। মোবাইল ফোন বা অবাধ তথ্যপ্রযুক্তির যুগে প্রেম ভালোবাসার ক্ষেত্রে যোগাযোগের বিষয়টি সহজলভ্য হলেও পাল্টে যাচ্ছে ভালোবাসার ধরণ ও সংজ্ঞা। একদার পবিত্র ভালোবাসার ঘরে প্রবেশ করছে যৌনতা। প্রেমের বাজারে এখানে প্রতারণা হচ্ছে প্রতিনিয়তই। এক একজন প্রেম করছে একাধিক নারী-পুরুষের সাথে। সবার উচিত নিজেদের নিয়ে সন্তুষ্ট থাকা। বিভিন্ন উদাহরণ দিয়ে তিনি বিষয়টা সকলকে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন। যেমন তিনি লিখেছেন, নারী পুরুষ দুই পক্ষেরই সৌন্দর্য্যের প্রতি আকর্ষণ থাকাটা একটি জন্মগত স্বভাব। খুবই স্বাভাবিক এবং তাতে কোনো দোষ নেই। ঠোঁটের উপর সুন্দরবন এবং কপালের উপর সাহারা মরুভূমির অধিকারী পুরুষ যেমন জীবনসঙ্গিনী হিসেবে ঐশ্বরিয়া রাইকে চায়, তেমনি মুখে বিশাল বিশাল আচিলওলা, মোটামুটি পর্বতাকার মেয়েটিও ঋত্বিক রোশানের স্ত্রী হতে চায়। সমস্যা ঘটে তখন, যখন বিয়ের পরেও তাদের এই আপশোস যেতে চায় না। এটা ঠিক না। এমনটা ভাবতে গিয়ে সময় নষ্ট করার পর মানুষের এক সময় মনে হয়, ইহা আমি কী করিলাম! নিজের জীবনসঙ্গী/সঙ্গিনীকে নিয়েই সুখী হবার চেষ্টা করুন। সুন্দরভাবে কথা বলুন, একসাথে হাসুন, ভাল কোনো রেস্টুরেন্টে খেতে যান সবার উপরে..ভালবাসুন! দুজনের আনন্দময় মুহূর্তের ছবি তুলে ফেসবুকে দিন! সুখী দম্পতি দেখতে সবারই ভাল লাগে। দেখুন কয়টা লাইক এবং কমেন্ট পান! কে বলতে পারে, আপনার কালো স্ত্রী অথবা ভুড়িওলা স্বামীর মাঝেই হয়তো এমন কোনো গুণ আছে যা শাহরুখ খানেরও নেই। জীবনানন্দ দাসকে মোটেও সুদর্শন ব্যক্তি বলা চলে না, অথচ তার মতন রোমান্টিক কবিতা স্বয়ং রবীন্দ্রনাথও কী লিখতে পেরেছিলেন? আসুন ভালবাসার মানুষটিকে কি দেয়া যায়:- ভ্যালেন্টাইন্স ডে উপলক্ষে কার্ড, শোপিস, চকোলেট বক্স, এবং মগ বেশি বিক্রি হয়ে থাকে। আকার এবং ডিজাইনের ওপর নির্ভর করে এগুলোর দাম ১৫০ থেকে ২০০০ টাকা। প্রিয়জনকে দেয়া যেতে পারে- চাবির রিং আর মগ। প্রেমিকার জন্য জন্য কিনতে পারেন- কার্ড, ফুল, মগ, সানগ্লাস, চকোলেট, গয়না, ব্যাগ, হাতঘড়ি, সুগন্ধি, গয়নার বক্স, ফুলদানি, পেইন্টিংস, ফটোফ্রেম, মোবাইল ফোন সেট, পোশাক, ডায়েরি, সিডি, বই। প্রেমিকের জন্য- কার্ড, ফুল, মগ, সানগ্লাস, চকোলেট, মানিব্যাগ, সুগন্ধি, চাবির রিং, শেভিং কিটস, হাতঘড়ি, বেল্ট, পোশাক, সিডি, ফটোফ্রেম, কলম, কাফলিংক সেট, টাই, ব্যাগ, আর বই। স্বামী-স্ত্রী, বাবা-মা, ভাই-বোন, সন্তান এবং যে কোনো প্রিয় বন্ধুর জন্যই উপহার দিতে পারেন। ছোট একটি উপহার মানুষের সর্ম্পক আরও বেশি মধুর করে তোলে এ ভালবাসা দিবসটিকে। উপহার অনেক দামী হতে হবে এমন কোনো কথা নেই। প্রিয়জনের জন্য শুধুমাত্র একটি লাল গোলাপের আবেদন টাকা দিয়ে মাপা যাবে না। যিনি উপহার পাচ্ছেন: প্রতিটি উপহারের সঙ্গে অনেক ভালোবাসা, গুরুত্ব এবং আন্তরিকতা থাকে। উপহার কখনোই টাকার পরিমাপে দেখতে হয় না। আর উপহারটি পছন্দ না হলেও সামনে বলা ঠিক নয় বরং মনে করে বিশেষ উপলক্ষে আপনাকে উপহার দেওয়ার জন্য তাকে ধন্যবাদ জানান। কি পোষাক পরবেন ভালোবাসা দিবসে:- ভালোবাসা দিবস খুব বিশেষ একটা দিন যা বছরে একবারই আসে। এ বিশেষ দিনে সকলেই তাদের সবচে’ প্রিয় মানুষটিকে খুশি করার জন্য নানা ধরণের পরিকল্পণা গ্রহণ করে থাকে। তাই যখন ভালোবাসা দিবসে আপনারা আপনাদের প্রেমিক কিংবা প্রেমিকার সাথে বাইরে যান, তখন স্বাভাবিকভাবেই আপনার চেষ্টা থাকে কিভাবে নিজেকে খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা যায়। ইতোমধ্যে আপনি নিশ্চয়ই পরিকল্পণা করে ফেলেছেন ভালোবাসা দিবসে আপনি কি করবেন, তাইনা? এক্ষেত্রে দুটো বিষয় হতে পারে। হয় আপনি এই বিশেষ দিনে কি ধরণের পোষাক পরবেন, তা নিয়ে ভাবছেন কিংবা এই ব্যাপারে আপনি কোন কিছু চিন্তাই করছেন না। যেহেতু সে আপনাকে ভালোবাসে, তাই ভাবছেন বিশেষ কিছু করার কোন প্রয়োজন নেই। কিন্তু এই বিশেষ দিনে বিশেষভাবে তৈরি হওয়ার প্রয়োজনীয়তা আছেই। এই ভালোবাসার দিনে চমকে দিন আপনার ভালোবাসার মানুষটিকে এক অনন্য সাজে সেজে, দেখবেন আপনার ভালোবাসার মানুষটি একে দারুণ উপভোগ করবে। ভালোবাসা দিবসের দুপুরের পোষাক:- মেয়েদের জন্য: যখন দুপুরের খাবার খেতে বাইরে যাবেন, তখন উজ্জ্বল পোষাক এড়িয়ে যাবেন। গোলাপী, ক্রীম, নীল, হলুদ এই রঙগুলো বেশ ভালো লাগবে। যখন এটি আপনার সাধারণ ডেট থাকবে, তখন চাইলে আপনি একটি জিন্স আর একটি টিশার্ট পরে নিতে পারেন। এতেই আপনাকে ভালো লাগবে। এক্ষেত্রে আপনার আরামের দিকেও খেয়াল রাখবেন, তাই চেষ্টা করবেন হাইহীল এড়িয়ে চলতে। এর সাথে আপনি ইচ্ছেমতো অনুষঙ্গ ব্যবহার করতে পারেন। চাইলে স্টাইলিশ বেল্ট, আকর্ষণীয় ব্যাগ, সুন্দর কানের দুল, ব্রেসলেট এর সাথে হাল্কা মেকআপ করে নিজেকে সাজিয়ে নিন সেভাবে যেভাবে নিজেকে দেখতে চান। ছেলেদের জন্য: দুপুরের খাবার খাওয়ার সময় হাল্কা নীল, ক্রীম, কিংবা বাদামী রঙের পোষাক পরতে পারেন। আপনি জিন্স আর টার্টল গলার টিশার্ট পরতে পারেন ডেট এ যাওয়ার জন্য। আপনি যদি আপনার চেহারায় স্পোর্টি লুক ধরে রাখতে চান, তাহলে ভি গলার টিশার্টও পরতে পারেন। যদি আপনি জিন্স পরতে পছন্দ না করেন, তাহলে ব্যাগি প্যাণ্টও পরতে পারেন। ভালোবাসা দিবসের বিকালের পোষাক:- মেয়েদের জন্য: আপনি কি একটি রোমান্টিক রাতের খাবারের কথা ভাবছেন? তাহলে কালো হবে আপনার জন্য সবচেয়ে মানানসই পোষাক। চাইলে আপনি লাল রঙের পোষাকও পরতে পারেন। যে ধরণের পোষাক সহজে কুঁচকায় না সে ধরণের পোষাক নির্বাচন করবেন রাতের ডেটের ক্ষেত্রে। ছেলেদের জন্য: ছেলেদের জন্যেও প্রিয় মানুষের সাথে রাতের খাবার খেতে যাওয়ার ক্ষেত্রে কালো সবচেয়ে মানানসই পোষাক। কালো জিন্সের সাথে মেরুন কিংবা লাইলাক রঙের টিশার্ট পরতে পারেন চাইলে। রাতের কোন অনুষ্ঠানে যেতে চাইলে কালো স্যুটের সাথে প্লেইন কিন্তু উজ্জ্বল শার্ট পরলে আপনাকে বেশ আকর্ষণীয় দেখাবে। আপনার লুকটাকে আরো বেশি ফ্যাশনেবল করতে চাইলে স্কার্ফও ব্যবহার করতে পারেন। চামড়ার জুতো বিকালের পোষাকে এক নতুন মাত্রা যোগ করবে। যদি আপনার কোন ভালোবাসার মানুষ না থাকে, তাহলে বাসায় চুপ করে বসে থাকবেন না। বাইরে ঘুরে বেড়ান এবং সবাইকে দেখিয়ে দিন যে বিশেষ কোন ভালোবাসার মানুষ ছাড়াও ভালো থাকা যায়। ১৪ই ফেব্রুয়ারিতে আপনার ভালোবাসার মানুষ থাকুক কিংবা না থাকুক, আপনি দিনটিকে উপভোগ করুন ইচ্ছেমতো, নিজেকে রাঙ্গিয়ে তুলুন মনের মতো করে। আপনি কি ধরণের পোষাক পরছেন তার উপরে কিন্তু নির্ভর করে আপনাকে অন্য মানুষ কিভাবে দেখছে সে বিষয়টি।

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *