খুব সহজে দেশী মুরগীর রোষ্ট রান্না

জেসমিন আহমদ: সপ্তাহের একটি দিনে সবাই চায় একটু ভাল কিছু খেতে। তাই আপনি আপনার পরিবারের সবাইকে চটজলদি মুরগীর রোষ্ট বানিয়ে খাওয়াতে পারেন। তাহলে আর কি ভাবছেন তৈরী করে ফেলুন দেশী মুরগীর রোষ্ঠ। উপকরন ও পরিমান:- মুরগীর মাংস দেড় কেজি (কিংবা ৭/৮টা লেগ পিস নিতে পারেন) জয়ফল (১টা ফল ১০ কেজির জন্য ব্যবহার হয়) সামান্য, জয়ত্রী ১/২ চা চামচ, চিনা বাদাম ৪ চা চামচ (বাটা বা গ্রাইন্ড করা), দারুচিনি ৪ টুকরা (হাফ ইঞ্চি), এলাচি ৩/৪ টা, কিসমিস ১০/১২ টা, তেজপাতা, ৩/৪ টা আলু বোখারা ৩/৪ টা, আদা ১ টেবিল চামচ, রসুন দেড় টেবিল চামচ, ধনিয়া ১ চা চামচ, জিরা ১ চা চামচ, কাঁচা মরিচ পেষ্ট/ বাটা/ গ্রাইন্ড (ঝাল বুঝে) ২ টেবিল চামচ, টমেটো সস ২ টেবিল চামচ টক দই এক কাপের অর্ধেকের কম, চিনি ১ চা চামচ, পরিমান মত লবন/পানি, তেল পনে এক কাপ, লাল মরিচ গুড়া, হাফ চা চামচ, ঝাল বুঝে! পেঁয়াজ কুঁচি এক কাপ (বেরেস্তার জন্য, সামান্য লবন যোগে পেঁয়াজ ভেজে তুলে রাখলেই বেরেস্তা হয়ে যায়)। প্রনালীঃ তেল ছাড়া বাকী সব মশলা দিয়ে মোরগের মাংস মিশিয়ে নিন এবং এভাবে আধা ঘন্টার জন্য রেখে দিন। লবন দিতে ভুলবেন না! (তবে লবন প্রথমে সব সময়েই কম দিয়ে শুরু করতে হয় যে পাত্রে বেরেস্তা ভাঁজা হয়েছিল (বেরেস্তা ভেঁজে আগেই উঠিয়ে রাখতে হবে), সেই পাত্রে তেল দেখে নিন এবং সেই তেলেই রান্না শুরু করুন। মাংস গুলে তেল গরম করে দিয়ে দিন।মশলা গুলোও সব দিয়ে দিন। মশলার পাত্র ধুয়ে হাফ কাপ পানি দিতে ভুলবেন না। ব্যস মুল কাজ শেষ, এবার ঢাকনা দিয়ে মাধ্যম আঁচে আধা ঘন্টা জ্বাল দিন। মাঝে মাঝে নাড়িয়ে দিতে ভুলবেন না। ঠিক এমন অবস্থায় এসে যাবে। গোসত নরম হল কিনা দেখে নিন। যদি গোসত নরম না হয় তবে আরো কিছু ক্ষনের জন্য ঢাকনা দিয়ে জ্বাল দিন, পানি/ঝোল কমে গেলে প্রয়োজনে আরো কিছু পানি দিতে পারেন। আগুনের আঁচ কম থাকবে, বেশি আঁচ হলে, ঝোল কমে পুড়ে যাবে! তাই সাবধান, চুলার ধারেই থাকুন। মাঝে মাঝে নাড়িয়ে দিন। দেখেই লোভ লাগবে! ফাইন্যাল লবন দেখুন, লাগলে দিন। বেরেস্তা গুড়া (হাত দিয়েই যা ভাংগা যায়) করে ছিটিয়ে দিন। কয়েকটা আস্ত কাঁচা মরিচ দিতে পারেন, দেখার জন্য! হয়ে গেল দেশী মুরগীর রোষ্ট। ব্যস, পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত!

This website uses cookies.