শাড়িতেই সুন্দর নারীরা

54 (2)প্রথম সকাল ডটকম: একসময়ে দেখা যেত বিশেষ উপলক্ষে মায়ের আলমারির জমকালো শাড়িটা বের করেই পরে নিতেন তরুণী মেয়েটি। এখনো তা-ই হয়। তবে তাতে ফুটে ওঠে তাঁর নিজস্ব স্টাইল। পুরোনো ঢঙের ঐতিহ্যবাহী শাড়িটিই আধুনিক অনুষঙ্গের ব্যবহারে হয়ে ওঠে বৈচিত্র্যময়। ব্লাউজ আর গয়নার বাহারে ফুটে ওঠে হাল আমলের ট্রেন্ড। শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে ব্লাউজ নয় বরং ব্লাউজের নকশার সঙ্গে কনট্রাস্ট করে শাড়ি পরাটাই এখনকার ট্রেন্ড, এমনটাই জানালেন অনলাইন বুটিক শপ বাটারফ্লাই বাই সাগুফতার ডিজাইনার সাগুফতা হোসেন। যেমন হালকা গোলাপি শাড়ির সঙ্গে অনায়াসেই পরতে পারেন গাঢ় নীল ব্লাউজ। অথবা উল্টোটাও চলবে। সাগুফতা আরও জানান, ব্লাউজের কাটছাঁটে পাশ্চাত্য ঢং আর নকশায় ঐতিহ্যবাহী ভাবটাই এখনকার চল। হাতার নকশায় বৈচিত্র্য তো ছিলই, এখন ব্লাউজের গলা বা নেকলাইনে থাকছে জমকালো নকশা। শুধু সামনেই নয়, ব্লাউজের পেছনেও থাকছে জমকালো নকশার কাজ। কালো, গাঢ় সবুজ বা নীল এ রকম একরঙা কাপড়ের পেছনটা জুড়ে থাকছে জরি সুতার ভরাট এমব্রয়ডারির কাজ। সিল্কের ব্লাউজের পেছনে কাটওয়ার্কে থাকছে লতাপাতার নকশা। আবার ভেলভেটের সঙ্গে পাতলা কাপড়ের ব্যবহারে থাকছে বৈচিত্র্য। সিল্কের সঙ্গে নেটের সমন্বয়ে বড় পাথর আর চুমকির নকশায় আনা হচ্ছে জমকালো আভা। কনট্রাস্ট রঙে খাটো হাতার ব্লাউজ চলছে বেশডিজাইনার মাহিন খান জানান, ব্লাউজটা জমকালো হলেও শাড়ির ক্ষেত্রে হালকা রং ও নকশার সিল্ক বা মসলিনেই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছেন এখনকার তরুণীরা। এসব শাড়িতে প্রাধান্য পাচ্ছে হালকা সাদা, হালকা নীল, গোলাপি, লাল, সবুজ ও জলপাইয়ের মতো রংগুলো। পুরো জমিনজুড়ে সুতার কাজে ফুটে উঠছে ফুলেল নকশা। এদিকে ঐতিহ্যবাহী মসলিনটা একটু ফুলে থাকায় মোটা দেখায় বলে যাঁরা অনুযোগ করেন, তাঁদের জন্য মসলিনের শাড়িতে কুঁচি আর আঁচলে ব্যবহার করা হচ্ছে বলাকা সিল্ক, জানালেন দোয়েল সিল্কের পরিচালক জি এম আলমগীর। এ ছাড়া কোনো নকশা ছাড়াই শাড়িতে জমকালো ভাব আনতে এখন একই শাড়িতে করা হচ্ছে ভিন্ন ভিন্ন রঙের ব্যবহার। যেমন শাড়িটা মেরুন হলে আঁচলের তিন ভাগ থাকছে নীল, সাদা আর কালো রং। আরও থাকছে একরঙা শাড়িতে সেই রঙের ভরাট কাজ। মেকআপ এখন হালকাই হচ্ছে, জানালেন রেড বিউটি স্যালনের রূপবিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন। যেমন শাড়ির যে রং, তার একটু হালকা শেডের আইশ্যাডো বা লিপস্টিক ব্যবহার করা এখনকার ট্রেন্ড। এদিকে চুলের সাজেও স্প্রে বা জেলের ব্যবহার চলছে না। একটু এলোমেলো ঢঙেই চুল সাজানো হচ্ছে। ব্লাউজের পেছনের নকশাটা একটু জমকালো হলে চুলগুলোকে একদিকে নিয়ে একটু উঁচু করে পনিটেল বেঁধে নিন। আবার সামনের চুলগুলো টুইস্ট করে একদিকে বেণিও বাঁধতে পারেন। তবে যাঁরা ঐতিহ্যবাহী সাজে সাজতে চান, তাঁদের চুলে মেসি বানটাই ভালো লাগবে বলে জানালেন এ রূপবিশেষজ্ঞ। ছোট হাতার ব্লাউজটাই যেহেতু এখনকার ট্রেন্ড। তাই হাতের সাজেও খেয়াল রাখতে হবে। লোশনের সঙ্গে একটু শিমার মিশিয়ে হাতে লাগিয়ে নেওয়ার পরামর্শ দিলেন তিনি। যদি ব্লাউজের গলায় জমকালো কাজ থাকে, তাহলে গলায় কোনো গয়না না পরাই ভালো। তবে এ ধরনের সাজ পোশাকে ভারী নকশার কানের দুল আর আঙুলে বড় আংটিটা মানিয়ে যায় বেশ।

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *