স্বাধীনতা চোখে দেখেছি

আহমেদ বশীর

আমি বুকের রক্তে রঞ্জিত করা স্বাধীনতা চোখে দেখেছি,
আমি অগ্নি খরার বিজয় দিনের শত কথা মনে রেখেছি,
আমি কখনো কেঁদেছি, কখনো হেসেছি, কখনো করেছি প্রতিবাদ,
আমি মুক্তিসেনার মৃত্যু দেখেছি, মরণ নেশার কিযে স্বাধ !
আমি বিজয়ের বেশে উল্লাস হেসে স্বাধীনতা চোখে দেখেছি।

আমি শত্রু সেনার ছত্রছায়ায় দেখেছি ঘাতক রাজাকার,
আমি দেখেছি ওরাই করেছে এখানে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারকার,
আমি দেখেছি দু’চোখে বুদ্ধিজীবির কত যে লাশের সারি,
আমি দেখেছি বিধবা কত যে নারীর কান্নার আহাজারি,
আমি বিজয়ের বেশে উল্লাস হেসে স্বাধীনতা চোখে দেখেছি।

আমি কালো রাত্রির আঁধার দেখেছি দুঃস্বপ্নের ছায়া,
আমি দুঃখিনী মায়ের আঁচলে দেখেছি জমে আছে যত মায়া !
আমি দেখেছি কষ্ট বীরাঙ্গনার সমাজের তারা জঞ্জাল,
আমি মুক্তিসেনাকে দেখেছি ভুখায় মৃত-মরা যত কঙ্কাল,
আমি বিজয়ের বেশে উল্লাস হেসে স্বাধীনতা চোখে দেখেছি।

আমি দেখেছি দু’চোখে ধ্বংস-বিনাশ মসজিদ ভাঙ্গা মন্দির,
আমি দেখেছি ভাঙ্গতে উল্লাস ভরে সারা দেশে কারা-বন্দীর,
আমি মেশিন গানের শব্দে দেখেছি রনাঙ্গনের যুদ্ধ,
আমি শত্রু সেনাকে দেখেছি এদেশে বন্দীতে অবরুদ্ধ।
আমি বিজয়ের বেশে উল্লাস হেসে স্বাধীনতা চোখে দেখেছি।

আমি কান্না দেখেছি, হাসিও দেখেছি, দেখেছি স্বপ্নে দেশটা,
আমি না পাওয়া সেই কষ্ট দেখেছি, বুকে থেকে গেছে রেষটা,
আমি স্বাধীনতা নামে বিজয় দেখেছি, উল্লাস ভরা দিগন্তে,
আমি বিজয় দেখেছি সবুজ পতাকা, লাল সুর্য এ প্রান্তে !!
আমি বিজয়ের বেশে উল্লাস হেসে স্বাধীনতা চোখে দেখেছি।

This website uses cookies.