নবীগঞ্জে অজ্ঞাত মহিলার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ): নবীগঞ্জ পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও যুবলীগ নেতা মিজানুর রহমান মিজানের বাড়ির সীমানা প্রাচীরের ভ্যান্টিলিটারের সাথে গলায় ওড়না পেছানো জ্যোৎস্না বেগম (৩৫) নামের এক মহিলার লাশ উদ্ধার বরেছে পুণিশ। গতকাল (বুধবার) সকালে এ লাশ উদ্ধার হয়েছে। পুলিশ মৃতদেহ তল্লাশী করে একটি চিরকোট উদ্ধার করে। ওই চিরকোটে মহিলার নাম জ্যোৎস্না এবং তার বাড়ি হবিগঞ্জের উচাইল উল্লেখ রয়েছে বলে সুত্রে জানাযায়। তবে তদন্তের স্বার্থে পুলিশ ওই চিরকোটের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য দিতে অপারকতা প্রকাশ করেছে। পুলিশ সকাল প্রায় ১১ টার দিকে মৃতের সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ আধুনিক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকালে ঘুম থেকে জেগে উঠে কাউন্সিলর মিজানের বাড়ির পাশের জনৈকা মহিলা বাহিরে এলে বাড়ীর সামনের দেয়ালে ওই মহিলার মৃতদেহ দেখে চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। এ সময় গ্রামের অসংখ্য মানুষ ভীড় জমান। খবর দেয়া হয় নবীগঞ্জ থানায়। থানার ওসি (তদন্ত) গৌর চন্দ্র মজুমদারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে যান। লাশের সুরতহাল তৈরি করে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করেন। সুরতহাল তৈরির সময় লাশের ব্লাউজের নিচ থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করে পুলিশ। তাতে ঐ মহিলার বাড়ি হবিগঞ্জের উচাইল নাম জ্যোৎস্না বলে জানা গেছে। এছাড়া তার কোনো পরিচয় পাওয়া যায়নি। ঘটনার খবর পেয়ে হবিগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য এম এ মুনিম চৌধুরী বাবু, সহকারী পুলিশ সুপার (উত্তর সার্কেল) নাজমুল ইসলাম, নবাগত সহকারী পুলিশ সুপার সাজিদুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এদিকে কাউন্সিলর মিজানুর রহমান সকাল সাড়ে ১০ টা পর্যন্ত বাড়িতে অবস্থান করলেও সহকারী পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল পৌছার আধ ঘন্টা আগেই আত্মগোপনে চলে যায়। এ নিয়ে রহস্য ঘণিভুত হচ্ছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সহকারী পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ বেলা দেড়টা পর্যন্ত অপেক্ষা করেও না পেয়ে ফিরে আসেন। এছাড়া উক্ত মহিলার মৃত্যুর ঘটনায় নবীগঞ্জে তোলপাড় চলছে। উক্ত চিরকোটে কি লেখা ছিল, মৃতের প্রকৃত পরিচয় পাওয়া গেলেই আসল রহস্য উদঘাটিত হবে ধারনা করা হচ্ছে। অপর একটি সুত্রে জানাযায়, উচাইল গ্রামের উক্ত মৃত জ্যোৎস্না বেগমের স্বামীর বাড়ি বানিয়াচং থানার দক্ষিন যাত্রাপাশা গ্রামে। প্রায় ৮/১০ মাস পুর্বে স্বামী মহিবুর রহমানের সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এরপর থেকে এ মহিলা পিত্রালয়ে বসবাস করতো বলে জানাগেছে।

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *