হবিগঞ্জের আমতলী বাগানে চিত্রা হরিণ

protom1 (8)প্রথম সকাল ডট কম ডেস্ক: হবিগঞ্জে পাহাড়ের উঁচু-ঢালু স্থান ঘিরে গড়ে ওঠা বনাঞ্চল উজাড় হচ্ছে। এক শ্রেণির লোকেরা বন থেকে কেটে নিচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ। ফলে পরিবেশ ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ছে। পশুপাখি হারাচ্ছে তার আশ্রয়স্থল। পরিবেশ বিপর্যয়ে উত্তপ্ত হচ্ছে বাতাস। হবিগঞ্জ জেলার আয়তনের ১১,৬৪৪ হেক্টর (৪.৫৩%) জমিতে রয়েছে বনাঞ্চল। জেলার নবীগঞ্জ, বাহুবল, চুনারুঘাট, মাধবপুর উপজেলায় এসব বনাঞ্চল। রক্ষার জন্য রয়েছে বনরক্ষী। এদের মধ্যে রয়েছে কিছু অসাধু। তাদের সহযোগীতায় সংঘবদ্ধ চোররা বন থেকে অবাধে কেটে নিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ। হরিণ, বাঘ, মুখপোড়া হনুমান, বানর, হাতি, খরগোশ, বনমোরগ, নানান প্রজাতির সাপ, পাখিসহ বিভিন্ন প্রজাতির জীবজন্তুর জন্য হবিগঞ্জের বনাঞ্চলের খ্যাতি ছিল। বনাঞ্চল থেকে অবাধে গাছ কেটে নেওয়ায় জঙ্গল যেমন উজাড় হচ্ছে তেমনি তার সাথে দিনে দিনে হ্রাস পেয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির পশুপাখিও। বনাঞ্চল ঘুরেও কোন চিত্রা হরিণ বা মায়া হরিণ কিংবা বাঘের সন্ধান পাওয়া কঠিন। তবে গভীর বনে প্রবেশ করলে সহজেই বানর, মুখপোড়া হনুমান, বিভিন্ন প্রজাতির পাখি দেখতে পাওয়া যায়। বনাঞ্চল জীবজন্তুর দুর্দশার দিকটি লক্ষ্য করে বাহুবল উপজেলার আমতলী চা বাগান কর্তৃপক্ষ ২০১১ সালের দিকে সরকারীভাবে অনুমতি নিয়ে চিত্রা হরিণ পালন শুরু করে। চা বাগানের দুই বিঘা জমির চারদিকে কাটা তারের বেড়া নির্মাণ করা হয়। বেষ্টনির ভেতরে একটি পুরুষ ও একটি মহিলা চিত্রা হরিণ ছাড়া হয়। তারা পরপর ৪টি বাচ্চা দিয়েছে। হরিণের খাদ্যের জন্য এ জমিতে রয়েছে প্রাকৃতিক ঘাস, আমলকী, বহেরা গাছ। পাহাড় বেষ্টিত প্রায় ৬’শ একর এরিয়ার এ বাগানটির মধ্যে ৩৬০ একর জমিতে চা, দেড়শ একর জমিতে রাবার, বাকি জমিতে বনাঞ্চল, অফিস, ফ্যাক্টরি রয়েছে। বাগানের চতুরদিকে সবুজ আর সবুজের সমারোহ। বাগানটিতে রয়েছে বনমোরগ, বানরসহ বিভিন্ন প্রজাতির পাখি ও সাপ। এ ব্যাপারে আলাপকালে বাগান ম্যানেজার কাজী মাসুদুর রহমান জানান, হরিণ পালনের জন্য বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বিভাগের অনুমতি নেওয়া হয়। তারপর বাগানে চিত্রা হরিণ পালন শুরু করি। তিনি বলেন, ‘জেলার প্রায় ৩০টি চা-বাগানের মধ্যে আমতলী বাগান এই প্রথম চিত্রা হরিণ পালনের উদ্যোগ নিয়ে সফল হয়েছে। লেখক: মোঃ মামুন চৌধুরী, হবিগঞ্জ

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *