রেড অ্যালার্টে গতিশীল মহানগর বিএনপি

BNPপ্রথম সকাল ডেস্ক: দ্বন্দ্ব, বিভেদ ছাপিয়ে এবার মহানগর বিএনপিকে গতিশীল করার উদ্যোগ নিয়েছে দলটির নবগঠিত কমিটি। মঙ্গলবার রাতে সংগঠনটির নেতাদের নিয়ে রুদ্ধদার বৈঠকে বিএনপি চেয়ারপারসনের ‘রেড অ্যালার্টের’ পর ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এর অংশ হিসেবে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বুধবার বেলা সাড়ে ১২টা থেকে সোয়া ২টা পর্যন্ত বৈঠক করেন সংগঠনটি নেতারা। গত ১৯ জুলাই কমিটি গঠনের পর থেকে একই ছন্দে কাজ করতে পারছিল না মহানগরের নতুন কমিটি। বিশেষ করে কমিটির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস সদস্যসচিব হিসেবে সোহেলকে মেনে না নেওয়ার মানসিকতায় এই অবস্থা তৈরি হয় বলে সূত্রগুলো জানায়। এ ছাড়া কমিটি গঠনের পর সোহেলকে ছাড়াই বৈঠক করা এবং সদস্যসচিবের জন্য নির্ধারিত কক্ষ নিয়ে তালা দেওয়ার পাল্টাপাল্টি ঘটনা সৌদি আরবে বসেই জানতে পারেন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ হন তারা। সরকার বিরোধী আন্দোলনকে সামনে রেখে দলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এ শাখার এমন পরিস্থিতিতে মহানগরের নেতাদের বুধবার বৈঠকে ডাকেন বিএনপি চেয়ারপারসন। ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে একপ্রকার ‘রেড অ্যালার্ট’ জারি করেন তিনি। মূলত এরপরই পাল্টে যায় মহানগরের চিত্র। মির্জা আব্বাস ও সোহেলের নেতৃত্বে গঠিত নতুন কমিটি এই প্রথম একসঙ্গে বৈঠক করলেন। বুধবার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে নিজেদের ঐক্যের জায়গায় বেশ জোর দেন উপস্থিত নেতারা। এ ছাড়া মহানগর বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের কমিটি গঠন সংগঠনকে আরো গতিশীল করার ব্যাপারে প্রায় দুঘণ্টা নিজেদের মধ্যে বিস্তারিত আলোচনা করেন নেতারা। বৈঠক সূত্র জানায়, বিএনপি চেয়ারপারসন দ্রুত ঢাকা মহানগরের কমিটি করার তাগিদ দিয়েছেন। সে জন্য কোনো প্রক্রিয়ায় দ্রুত সংগঠনকে পুনর্গঠন করা যায়, সে ব্যাপারে নেতারা যার যার অবস্থান থেকে মতামত দিয়েছেন। দ্রুত কমিটি করার জন্য একটি প্রক্রিয়া নির্দিষ্ট করতে সংগঠনের আহ্বায়ক মির্জা আব্বাসকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। পরে সেই প্রক্রিয়া নিয়ে আবারো আলোচনা করে সংগঠন পুনর্গঠনের কাজ শুরু হবে। সূত্র জানায়, ইউনিট থেকে মহানগর, নাকি মহানগর থেকে ইউনিট পর্যায়ে কমিটি গঠন হবে সে ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছানো সম্ভব হয়নি। তবে প্রত্যেকের মতামতের ভিত্তিতে দ্রুত একটি প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করার বিষয়ে স্থির হয়েছেন তারা। জানতে চাইলে বিএনপি চেয়ারপারসনের এবং কমিটির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল আউয়াল মিন্টু রাইজিংবিডিকে বলেন, সংগঠন পুনর্গঠনের জন্য কমিটির সিনিয়র নেতারা কর্মপন্থা নিয়ে আলোচনা করেছে। কোন পন্থায় দ্রুত মহানগরের কমিটি করা সহজ হবে এবং শক্তিশালী হবে সে ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল জানিয়েছেন, সংগঠনকে গতিশীল করা এবং সাংগঠনিক পুনর্গঠনের বিষয়ে জোর আলোচনা হয়েছে। অনানুষ্ঠানিক এ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাসে এবং পরিচালনা করেন সদস্যসচিব হাবীব উন নবী খান সোহেল। এতে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য এম তরিকুল ইসলাম, মহানগর আহ্বায়ক কমিটির সদস্যসচিব ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, আব্দুস সালাম, যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল আওয়াল মিন্টু, সালাউদ্দিন আহম্মেদ, কাজী আবুল বাশার, এম এ কাইয়ুম, আবু সাঈদ খোকন উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া আহ্বায়ক কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমান উল্লাহ আমান, বরকত উল্লাহ বুলু, আবুল খায়ের ভূইয়া, মোয়জ্জেম হোসেন আলাল বৈঠকে অংশ নেন। সুত্র:-রা:বিডি

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *