এলো শোক পালনের মাস

190190প্রথম সকাল ডেস্ক: বাঙালির ইতিহাসে কলঙ্কিত এক অধ্যায় সূচিত হয়েছে আগস্ট মাসেই। ইতিহাসের দীর্ঘ পথ পেরিয়ে বাঙালি জাতি সে নিষ্ঠুর হত্যার বিচারের রায় কার্যকরের মাধ্যমে কলঙ্কমুক্ত হলেও ঘাতকদের বিরুদ্ধে তীব্র ঘৃণার চেতনাকে নতুন করে জাগিয়ে তোলে এ মাস। এলো শোকের মাস। শোক পালনের মাস। আগস্ট মানেই জাতির বেদনাবিধূর শোকের মাস। স্বাধীন বাংলাদেশে এ মাসে নেমে আসে বাঙালি জাতির ওপর এক কালো থাবা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে জাতি হারিয়েছে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠসন্তান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। জাতির জনককে সপরিবারে হত্যা এবং স্বাধীনতার চেতনাকে মুছে ফেলার অপচেষ্টায় এক কালো অধ্যায়ের সূচনা করে ঘৃণিত ঘাতকরা। অকৃতজ্ঞ ঘাতকরা ১৫ আগস্ট কালোরাতে শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, ঘৃণ্য নরপশুরা একে একে হত্যা করেছে বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশুপুত্র শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামালকে। জঘন্যতম এই হত্যাকাণ্ড থেকে বাঁচতে পারেনি বঙ্গবন্ধুর ভাই শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগ্নে যুবনেতা ও সাংবাদিক শেখ ফজলুল হক মণি, কর্নেল জামিলসহ ১৬ জন সদস্য ও আত্মীয়স্বজন। সেনাবাহিনীর কিছু বিপথগামী সদস্য সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর গোটা বিশ্বে নেমে আসে তীব্র শোকের ছায়া এবং ছড়িয়ে পড়ে ঘৃণার বিষবাষ্প। এরপর ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ সরকার দিবসটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। এই মাসে আওয়ামী লীগসহ দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন মাসব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। ২০০৪ সালের একই মাসে (২১ আগস্ট) গ্রেনেড হামলার মধ্য দিয়ে হত্যার চেষ্টা হয়েছিল আওয়ামী লীগ সভাপতি তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে। এই ঘটনায় সাবেক রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের সহধর্মিনী ও আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদিকা আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন। আহত হন পাঁচ শতাধিক নেতা-কর্মী। প্রতিবারের মতো এবারও ১৫ আগস্টকে সামনে রেখে আগস্টের প্রথম দিন থেকেই শুরু হচ্ছে আওয়ামী লীগসহ সহযোগী সংগঠনগুলোর বিস্তারিত কর্মসূচি। পুরো মাস জুড়েই পালিত হবে এসব কর্মসূচি। ১ আগস্ট রাত ১২টা ১ মিনিটে শোকের মাসের প্রথম প্রহরে আলোর মিছিলের মধ্য দিয়ে মাসব্যাপী কর্মসূচির সূচনা হয়। মিছিলটি ধানমন্ডি ৩২নং সড়ক ধরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর অভিমুখে যাত্রা করে। বঙ্গবন্ধু পরিষদ জাতীয় শোক দিবস সামনে রেখে মাসব্যাপী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এসব কর্মসূচি উদ্বোধন উপলক্ষে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় আলোচনা সভা করা হয়। অন্যদিকে সকাল সাড়ে ৯টায় ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পার্ঘ্য অর্পণের মাধ্যমে জাতির জনকের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করবে বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা। এ ছাড়া বাংলাদেশ দেশরত্ন পরিষদ শোকের মাসের প্রথম দিনে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স রুমে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *