৭২ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতি ৭২ মিনিটেই শেষ

প্রথম সকাল ডেস্ক: গাজায় ৭২ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতি ৭২ মিনিটও পূর্ণ হতে দেয়নি ইসরাইল। গাজার ওপর বিপুল শক্তিতে ঝাঁপিয়ে পড়েছে তারা। ইসরাইল বিমান ও ট্যাঙ্ক হামলায় অন্তত ৪০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে বিপুলসংখ্যক। রাফা হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে, শুক্রবার ইসরাইলি হামলায় অন্তত ৪০ জন নিহত হয়েছে। আলজাজিরার নিকোল জনস্টন খান ইউনিস থেকে জানিয়েছেন, ইসরাইলি ট্যাঙ্কের গোলাবর্ষণ ব্যাপকভাবে বর্ষিত হচ্ছে। গাজার শুজায়া এলাকা থেকে আলজাজিরার ইমতিয়াজ তৈয়ব বলেন, তিনি যেখানে দাঁড়িয়েছিলেন, তার থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে প্রচন্ড শব্দ হয়েছে। এর পর সেখানে ধোয়ার কুন্ডলী দেখা যায়। এটা ইসরাইলি বিমান কিংবা ড্রোন আক্রমণের কারণে হয়ে থাকতে পারে। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে চোরাগুপ্তা হামলাও চালানো হচ্ছে। গার্ডিয়ান জানিয়েছে, হামাস রকেট নিক্ষেপ করেছে, এ অজুহাতে ইসরাইল আক্রমণ শুরু করেছে। ইসরাইলি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগ্যাল পামর বিবিসিকে বলেন, হামাস ‘নির্লজ্জভাবে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন’ করেছে এবং ইসরাইলি বাহিনী সব ফ্রন্টে জবাব দিচ্ছে। শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ৮টা (বাংলাদেশ সময় বেলা ১১টা) থেকে যুদ্ধবিরতি কার্যকর করতে সম্মত হয়েছিল ইসরাইল ও হামাস। যুদ্ধবিরতি কার্যকর হওয়ার সাথে সাথেই সব পক্ষের কায়রোতে শান্তি আলোচনায় মিলিত হওয়ার কথা ছিল। ইসরাইলি হামলায় এ পর্যন্ত অন্তত ১৫শ’ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। এদিকে ৭২ ঘণ্টা তথা তিন দিনের যুদ্ধবিরতি ঘোষিত হওয়ার পরই গাজার রাস্তাগুলোতে লোকজনে ভরে গিয়েছিল। ব্যাগ-ট্যাগ নিয়ে সবাই বাড়ির দিকে ছুটে যেতে শুরু করে। ইসরাইলের ভয়াবহ গোলাবর্ষণের কারণে এসব লোকজন তাদের বাড়িঘর ছেড়ে উদ্বাস্তু শিবিরে আশ্রয় নিয়েছিলেন।

This website uses cookies.