ক্রিকেট তারকাদের ঈদ

sm20140728121320প্রথম সকাল ডেস্ক: দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর সবাই এখন ব্যস্ত ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ঈদ উৎসব উদ্‌যাপনের জন্য ছুটে  গেছেন পরিবার-পরিজন ও আত্মীয়স্বজনের কাছে। ব্যতিক্রম নন জাতীয় দলের তারকা ক্রিকেটাররাও। যারা ঢাকা আছেন তারা শেষ মুহূর্তের শপিংয়ে ব্যস্ত। আর যাদের বাড়ি রাজধানীর বাইরে তারা এরই মধ্যে ঢাকা ছেড়েছেন। সামনেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর। নয় দিনের ছুটি পেয়েছেন ক্রিকেটাররা। ঈদের পর তাই দ্রুত ঢাকায় ফিরে ক্যাম্পে যোগ দিতে হবে তাদের। তারকা ক্রিকেটারদের ঈদের ব্যস্ততার খোঁজ নিয়ে এই প্রতিবেদন: মুশফিকুর রহিম: ঈদ উদ্‌যাপন করতে বগুড়ায় পৌঁছেছেন জাতীয় দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। বিশ্বকাপ ট্রফির জন্য শুক্রবার পর্যন্ত ঢাকায় ছিলেন তিনি। এরপর গ্রামের বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন। মা-বাবাকে সঙ্গে নিয়ে ঈদের দুদিন সেখানেই থাকবেন টাইগার দলপতি। পয়লা আগস্ট ঢাকায় ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে উইকেট রক্ষক এই ব্যাটসম্যানের। সাকিব আল হাসান: ঢাকায় মিরপুরে থাকলেও পরিবারের টানে বাড়িতে ঈদ করবেন দেশসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। স্ত্রী শিশিরকে নিয়ে সোমবার মাগুরা পৌঁছার কথা সাকিবের। সেখানে বাবা-মা ও ছোট বোন সাকিবের অপেক্ষায় আছেন। তবে ঈদের পরদিনই ঢাকায় ফিরবেন তিনি। সাকিবের ঘনিষ্ঠ সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ: স্ত্রী ও ছেলেকে নিয়ে ময়মনসিংহের উদ্দেশে গত শুক্রবার ঢাকা ছাড়েন জাতীয় দলের প্রাক্তন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ময়মনসিংহের রাস্তা খারাপ বলে নরসিংদী ঘুরে কিশোরগঞ্জ হয়ে বাড়িতে পৌঁছান রিয়াদ। অবশ্য বেশি দিন বাড়িতে থাকতে পারছেন না তিনি। জাতীয় দলের ক্যাম্প থাকায় ১ আগস্ট ঢাকায় ফিরবেন রিয়াদ। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর সামনে রেখে জাতীয় দলের ক্যাম্প শুরু হবে ২ আগস্ট। দলের সঙ্গে ওয়েস্ট ইন্ডিজ যাচ্ছেন ডানহাতি এই অলরাউন্ডার। ঈদের ব্যস্ততা নিয়ে বলেন, ‘আমাদের বাড়িতে এখন আনন্দময় পরিবেশ। বড় ভাইসহ পরিবারের সদস্যরা যারা ঢাকায় থাকেন, তারা বাড়ি পৌঁছে গেছেন। বাড়িতে বেশ আনন্দ করছি। ছেলে তার চাচাতো ভাই-বোনদের নিয়ে ব্যস্ত।’ শপিংয়ে বিষয়ে জানতে চাইলে রিয়াদ বলেন, ‘এবার ছেলে ও আমার জন্য কলকাতা থেকে পাঞ্জাবি কিনেছি। একই পাঞ্জাবি পরে একসঙ্গে ঈদের নামাজ পড়ার পরিকল্পনা রয়েছে। এ ছাড়া স্ত্রীর জন্যও কলকাতা থেকে শপিং করেছি। বাঙালি মেয়েরা যা পরে- শাড়ি, সেলোয়ার-কামিজ এগুলো কিনেছি। তাসকিন আহমেদ তাজিম: ঢাকার ছেলে তাসকিন প্রতিবছর ঈদ করেন ঢাকাতেই। তবে অন্যান্যবারের চেয়ে এবার ঈদটি তরুণ এই পেসারের কাছে আকর্ষণীয়। কেননা এবারই জাতীয় দলের হয়ে মাঠ মাতিয়েছেন ডানহাতি এই পেসার। ভারতের বিপক্ষে স্বপ্নের অভিষেক ম্যাচে পাঁচ উইকেট নেন তিনি। রাতারাতি তারকাও বনে যান তিনি। ঈদ নিয়ে তাসকিন বলেন, ‘অন্যান্য বারের চেয়ে এবারের ঈদটি আমার জন্য আকর্ষণীয়। যেখানেই যাচ্ছি আমাকে নিয়ে বেশ কথা হচ্ছে। সবাই ছবি তুলতে চাচ্ছে। অটোগ্রাফ দিতে হচ্ছে। সেলসম্যানরা বেশ কদর করছে। সব মিলিয়ে অসাধারণ।’ ঈদের ব্যস্ততা নিয়ে তাসকিন আরো বলেন, ‘শপিং শেষ করেছি। স্যান্ডেল কেনা বাকি। বাবা-মা, আত্মীয়স্বজন সবার জন্য এবার শপিং করেছি। আমি আর্টিস্টি থেকে পাঞ্জাবি কিনেছি। এ ছাড়া শার্ট-প্যান্ট কিনেছি ব্যাং থেকে। মুমিনুল হক: ঢাকা থেকে কক্সবাজারের দূরত্ব প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার। তাই বাস কিংবা নিজের কেনা অ্যালিয়ন গাড়ির নিয়ে বাড়ি যাবার কথা চিন্তাও করেননি মুমিনুল হক। শুক্রবার বিমানে চড়ে কক্সবাজার পৌঁছান মুমিনুল। মাত্র ৪৫ মিনিটে বাড়িতে পৌঁছে বেজায় খুশি বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। তবে অনেক দিন পর বাড়িতে এসে বেশি দিন থাকতে পারবেন না বলে মনটা খারাপ তার। পয়লা আগস্ট ঢাকায় ফিরে পরের দিন জাতীয় দলের ক্যাম্পে যোগ দিতে হবে তাকে। ঈদের ব্যস্ততা নিয়ে মুমিনুল বলেন, ‘বাবা-মার সঙ্গে ঈদ করতে এসেছি। ঢাকা থেকে ঈদের শপিং করেছি। সামনেই সিরিজ আছে। বেশি দিন তো থাকতে পারছি না। যত দিন আছি সবার সঙ্গে মজা করে কাটাতে চাই। আনামুল হক বিজয়: ক্যাম্প থেকে ছুটি পেয়ে সোজা কুষ্টিয়া চলে যান জাতীয় দলের ওপেনার আনামুল হক বিজয়। বাবা-মা ও ছোট বোনকে নিয়ে সেখানেই ঈদ করবেন তিনি। ঈদ নিয়ে আনামুল হক বিজয় বলেন, ‘শপিং আগেই শেষ করেছি। এখন বন্ধুবান্ধব নিয়ে ব্যস্ত। ঈদের দিন বাবার সঙ্গে নামাজ পড়ে বাসায় ফিরে মায়ের হাতের খিচুড়ি আর গরু মাংস খাব। গাড়ি নিয়ে কুষ্টিয়া শহর ঘুরে বেড়াব। পছন্দের তালিকায় রয়েছে লালন শাহের মাজার এবং বিখ্যাত কুঠিবাড়ি। শামসুর রহমান শুভ: বাবা হওয়ার পর প্রথম ঈদ জাতীয় দলের মারকুটে ওপেনার শামসুর রহমান শুভর। তাই অন্যান্য বারের চেয়ে শামসুর রহমানের উত্তেজনাটা অনেক বেশি। ছেলের বয়স পাঁচ মাস। ঈদের ব্যস্ততা নিয়ে শুভ বলেন, ‘ছেলেকে নিয়েই এবার আমার ঈদ। অনুভূতিটা অন্য রকম। আমার সঙ্গে ম্যাচিং করে ছেলেকে পাঞ্জাবি কিনে দিয়েছি। তবে এবার স্ত্রীর সঙ্গে ম্যাচিং করে কিছু কেনা হয়নি। ঢাকা থেকেই শপিং করেছি। উত্তরাতেই ঈদের নামাজ পড়ব। এরপর পরিবার ও বন্ধুবান্ধব নিয়ে সময় কাটাব। এভাবেই আমার ঈদ কেটে যাবে। মো. মিঠুন: জাতীয় দলের হয়ে দুটি ওয়ানডে ও একটি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন মো. মিঠুন। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একমাত্র টি-টোয়েন্টি খেলেন তিনি। এরপর ভারতের বিপক্ষে দুটি ওয়ানডে ম্যাচ। ওয়ানডের অভিষেক ম্যাচে নিজের প্রতিভা দেখান। ভারতের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ২৬ রান করেন তিনি। তবে ম্যাচ জিতিয়ে ড্রেসিং রুমে ফিরতে না পারায় হতাশায় ভোগেন তিনি। ঈদের ব্যস্ততার মাঝেও যেন সেই ম্যাচের স্মৃতি হাতছানি দেয় মিঠুনের। মিঠুনের ভাষায়, ‘সেই ম্যাচটির কথা সারা জীবন মনে থাকবে। আমার শুরুটা বেশ ভালো ছিল। কিন্তু আউট হওয়ার পর থেকেই খারাপ লাগা শুরু হয়। ম্যাচটি সেদিন আমিই জিতিয়ে আসতে পারতাম। আমি আউটের পর যখন ম্যাচটি হেরে যাই, তখন আরো বেশি খারাপ লাগে। ঈদ নিয়ে মিঠুন বলেন, ‘ক্যাম্প শেষ করে শনিবার কুষ্টিয়াতে আসি। পরিবারের সঙ্গে ঈদ কাটিয়ে আবার পয়লা আগস্ট ঢাকায় ফিরব। পরিবারে আমার আব্বা-আম্মা, স্ত্রী ও দুই ভাই ও দুই বোন আছে। তাদের নিয়েই আমার ঈদ। ঢাকা থেকে সবার জন্য শপিং করেছি। ঢাকায় স্ত্রীকে নিয়ে মার্কেটে গিয়েছিলাম। ও যা পছন্দ করেছে তা-ই কিনে দিয়েছি। নুরুল হাসান সোহান: জাতীয় দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের পর উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান হিসেবে সবচেয়ে বেশি আলোচিত নুরুল হাসান সোহান। জাতীয় দলের জার্সি গায়ে জড়াতে পারেন যেকোনো সময়। সর্বশেষ ‘এ’ দলের হয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর করেছেন তিনি। বেশ কয়েকটি ভালো ইনিংস খেলার পাশাপাশি দলকে একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে জয়ের ভিত গড়ে দেন খুলনার এই তারকা। ঈদ উদ্‌যাপনের উদ্দেশ্যে এরই মধ্যে খুলনা পৌঁছেছেন তিনি। ঈদের ব্যস্ততা নিয়ে তিনি বলেন, ‘পরিবার নিয়ে ঈদ কাটাতে খুলনা অনেক আগেই চলে এসেছি। ঢাকা থেকে নিজের জন্য ও পরিবারের জন্য শপিং করেছি। পরিবারে আব্বা-আম্মা ও ছোট বোন আছে। এখানে আত্মীয়স্বজন আছে। সবার সঙ্গে ঈদ কাটাব। এরপর ঈদের সপ্তাহ খানেক পর ঢাকা ফিরে আসব। ঈদের পর ‘এ’ দলের ক্যাম্প শুরু হতে পারে। সেখানে যোগ দেব। তারকা এই ক্রিকেটাররা সবাইকে জানিয়েছেন ঈদের শুভেচ্ছা ও ঈদ মোবারক।

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *